বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ০৯:৪৬ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
হোয়াইট হাউজে ট্রাম্পের ক্ষমার জন্য ঘুষ: যুক্তরাষ্ট্রে তদন্ত শুরু আমাদের গুরুদায়িত্ব ঢাকাবাসীকে জলাবদ্ধতা থেকে মুক্ত করা: মেয়র তাপস এরদোয়ান ঢাকা সফরে সম্মতি দিয়েছেন ৬১ পৌরসভা নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা: নির্বাচন কমিশন শেরেবাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়াম পরিদর্শন করলেন ক্যারিবীয় প্রতিনিধি দল হোয়াটমোরের সেরা টেস্ট একাদশে সাকিব আল হাসান লিভারপুল গ্রুপ সেরা হয়ে শেষ ষোলোতে  বীর মুক্তিযোদ্ধা আতিক উল্ল্যাহ হত্যা মামলায় ৭ জনের মৃত্যুদণ্ড বাংলাদেশ আগামী বছর আয়োজন করবে ‘বিশ্ব শান্তি সম্মেলন’   বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য আঙ্কারায় এবং ঢাকায় হবে আতাতুর্কের ভাস্কর্য  দুর্যোগে বিএনপির ভূমিকা কী, জাতি জানতে চায়: ওবায়দুল কাদের করোনাভাইরাস : দেশে আরও ৩৮ জনের মৃত্যু, নতুন আক্রান্ত ২১৯৮ বিশ্বের প্রথম যুক্তরাজ্যে করোনার টিকার অনুমোদন নভেম্বরেও ৪১ শতাংশ বেড়েছে রেমিট্যান্স দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে মোবাইল নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর বিশ্বব্যাপী করোনায় ৪০ শতাংশ বেড়েছে হতদরিদ্র : জাতিসংঘ বিদ্যা ফিরিয়েছেন মন্ত্রীর আমন্ত্রণ, সিনেমার শুটিং গেলো আটকে বাংলাদেশে ম্যারাডোনাকে নিয়ে গান আমিরের সঙ্গে তর্কে জড়ানোয় আফ্রিদি শাসালেন আফগান পেসারকে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ: ভারত থেকে সরে যেতে পারে 

ব্যাংককে তীব্র সংঘর্ষে আহত প্রায় অর্ধশত

মুক্তকণ্ঠ২৪ ডেস্ক:

 

থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককে গতকাল মঙ্গলবার রাজতন্ত্রপন্থী সমর্থকদের সঙ্গে গণতন্ত্রপন্থী শিক্ষার্থীদের তুমুল সংঘর্ষ হয়। পুলিশ দুপক্ষের সংঘর্ষ থামাতে প্রথমে লাঠিপেটা করে, পরে বিশেষ রাসায়নিক পদার্থ মেশানো কাঁদানে গ্যাস ছোড়ে। সংবাদমাধ্যম বিবিসি ও ডয়চে ভেলে জানিয়েছে, এ ঘটনায় অন্তত ৪০ জন আহত হয়েছেন।

 

বার্তা সংস্থা এএফপি ও রয়টার্স জানিয়েছে, বিক্ষোভকারীদের অনেকের শরীরে বুলেটের আঘাত মিললেও পুলিশের দাবি তারা কোনো গুলিবর্ষণ করেনি।

 

যত দিন যাচ্ছে, থাইল্যান্ডের সরকারের বিরুদ্ধে জনরোষ তীব্র হচ্ছে। বহু সাধারণ মানুষ গণতন্ত্রপন্থিদের সমর্থন করছেন। সরকার সংবিধানের কিছু অংশ পরিবর্তনের আশ্বাস দিলেও গণতন্ত্রপন্থিদের বক্তব্য, তা যথেষ্ট নয়। যেভাবে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ক্ষমতা দখল করে আছেন, এরও তীব্র বিরোধী তারা। তাই প্রধানমন্ত্রী পদত্যাগ না করা পর্যন্ত আন্দোলন চলবে বলে জানিয়েছেন তারা।

 

কয়েক মাস ধরেই ব্যাংককে আন্দোলনে নেমেছেন শিক্ষার্থীরা। বর্তমান সরকারের ক্ষমতা ছেড়ে দেওয়া এবং প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগের দাবিতে তারা আন্দোলন করছেন। শুধু তাই নয়, শিক্ষার্থীদের দাবি বর্তমান সংবিধান বদলে গণতান্ত্রিক সংবিধান তৈরি করতে হবে। রাজার ক্ষমতাও কমাতে হবে। এর আগে পার্লামেন্টের সামনে দীর্ঘ আন্দোলন করেছেন শিক্ষার্থীরা। আন্দোলনের চাপে কারফিউ ঘোষণা করতে বাধ্য হয়েছিল থাই প্রশাসন। এরপরও শিক্ষার্থীদের দমিয়ে রাখা যায়নি। তবে গতকাল মঙ্গলবারের মতো এত বড় সংঘাত গত চার মাসের মধ্যে থাইল্যান্ডে ঘটেনি।

 

এদিন ব্যাংককের রাজপথে মিছিল করে বেরিয়েছিলেন গণতন্ত্রপন্থি শিক্ষার্থীরা। তাদের লক্ষ্য ছিল পার্লামেন্ট ভবন। শান্তিপূর্ণ মিছিল চলার সময় রাজতন্ত্রপন্থিরা তাদের ওপর হামলা চালায় বলে অভিযোগ। এসময় গণতন্ত্রপন্থিদের লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছোড়া হয় বলেও অভিযোগ। পাল্টা আঘাত করেন গণতন্ত্রপন্থিরাও। এতে রণক্ষেত্রের রূপ নেয় রাজপথ। ঘটনাস্থলে পৌঁছে পুলিশ দুপক্ষকে আলাদা করার চেষ্টা করে। শুরু করে লাঠিপেটা। সেইসঙ্গে ব্যবহার করে বিশেষ রাসায়নিক পদার্থ মেশানো কাঁদানে গ্যাস। কাঁদানে গ্যাসে বহু আন্দোলনকারী অসুস্থ হয়ে পড়েন। হাসপাতালে ভর্তি করতে হয় অন্তত ৪০ জনকে। তাদের মধ্যে অনেকের শরীরে বুলেটের ক্ষত মিলেছে। তবে পুলিশ কোনো ধরনের গুলি চালানোর কথা অস্বীকার করেছে। তা হলে কি রাজতন্ত্রপন্থিরা গুলি চালিয়েছিল? এ প্রশ্নের কোনো উত্তর এখন পর্যন্ত দিতে পারেনি পুলিশ।

 

 

 

মুক্তকন্ঠ২৪

নিয়মিত সকল সংবাদ পেতে মুক্তকন্ঠ২৪.কম এর ফেইসবুকে যুক্ত থাকুন

শেয়ার করুন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *