শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ০৩:০৭ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
উর্গবাদী সংগঠন দেশে শান্তি বিনষ্টের চেষ্টা করছে: ওবায়দুল কাদের ৮০ হাজার কোটি টাকা খেলাপি শীর্ষ ২৫ ব্যাংকে: বাংলাদেশ ব্যাংক অর্থ পাচারকারীদের আইনের আওতায় আনতে হবে: হাইকোর্ট যুক্তরাষ্ট্র ইরাকে থেকে কূটনীতিকের সংখ্যা কমাল  দেশ চলছে শতভাগ ব্যক্তিতন্ত্রের ওপর: গয়েশ্বর চন্দ্র ‘টেক্সট ফর ইউ’ শিরোনামে হলিউড সিনেমায় প্রিয়াঙ্কা ১১ ডিসেম্বর মুক্তি পাচ্ছে ‘বিশ্বসুন্দরী’  প্রভাস তিন সিনেমায় নিচ্ছেন ৩০০ কোটি! রাজধানীতে ভিপি নূরের নেতৃত্বে মশাল মিছিল বার্সা উড়ছে মেসিকে ছাড়াই  প্রথম জয় বেক্সিমকো ঢাকার  নিরাময়ের বদলে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্রগুলোতে চলে নির্যাতন পৃথিবীর মধ্যে সর্বোচ্চ খরচ বাংলাদেশের প্রতি কি.মি. রাস্তা নির্মাণে সিলেট এমসি কলেজে গণধর্ষণ: ৮ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট বিনামূল্যের পাঠ্যবই আটকা যাচ্ছে তিন সংকটে শনিবার থেকে অ্যান্টিজেন টেস্ট শুরু হচ্ছে করোনা: বিশ্বে মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ১৪ লাখ ৯৯ হাজার জলবায়ু পরিবর্তন ও মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যা মোকাবিলায় কর্ম-পরিকল্পনার আহ্বান সায়মা ওয়াজেদের বিশ্ব এখন করোনার ভ্যাকসিন যুগে  মানসম্মত জীবনের সব আয়োজনে আধুনিক শহর এখন ভাসানচর

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের  উপাচার্যের অপসারণ দাবি

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. এম আব্দুস সোবহান, উপ-উপাচার্য অধ্যাপক চৌধুরী মো. জাকারিয়া এবং ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার অধ্যাপক এম এ বারীর অপসারণ এবং দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলাদেশি জাতীয়তাবাদ ও ইসলামী মূল্যবোধে বিশ্বাসী শিক্ষক গ্রুপ (সাদা দল)। সাদা দলের ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক প্রফেসর ড. মোহা. এনামুল হক স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এ দাবি জানানো হয়।

 

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) কর্তৃক গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে তাদের বিরুদ্ধে ওঠা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থ আত্মসাৎ, স্বজনপ্রীতি, অর্থের বিনিময়ে নিয়োগসহ বিভিন্ন দুর্নীতির অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয়েছে। এমতাবস্থায় পদে থাকার নৈতিক যোগ্যতা তারা হারিয়েছেন।

বিবৃতিতে শিক্ষক নেতৃবৃন্দ উল্লেখ করেন, ইউজিসি গঠিত তদন্ত কমিটি ৩৬ পৃষ্ঠার মূল প্রতিবেদন এবং আরও প্রায় ৭০০ পৃষ্ঠার সংযোজনী প্রতিবেদন গত মঙ্গলবার ও বুধবার দুই দিনে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও দুর্নীতি দমন কমিশনে জমা দিয়েছে। যা জাতীয় বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। প্রতিবেদনে দেখা যায়, উপাচার্যসহ অন্যদের বিরুদ্ধে পঁচিশটি অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে।

 

শিক্ষক নেতৃবৃন্দ বলেন, উপাচার্যের এ ধরনের দুর্নীতি ও অনৈতিক কর্মকাণ্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠের মর্যাদাশীল পদের ভাবমূর্তি মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। যা গোটা বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারকে জাতির সামনে খাটো করেছে। এ ধরণের চরম পদস্খলিত, দুর্নীতি পরায়ণ ও অযোগ্য ব্যক্তিদের বিশ্ববিদ্যালয়ের শীর্ষ পদে কোনোভাবেই মেনে নিতে পারে না রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় পরিবার। তাই অনতিবিলম্বে রাবির উপাচার্য, উপ-উপাচার্যসহ অভিযুক্তদের অপসারণ করার জন্য আমরা মহামান্য চ্যান্সেলরের প্রতি দাবি জানাচ্ছি।

 

বিবৃতিতে স্বাক্ষরকারী শিক্ষকরা হলেন- প্রফেসর ড. মো. শামসুল আলম সরকার, প্রফেসর প্রফেসর ড. সি. এম. মোস্তফা, প্রফেসর ড. কে বি এম মাহবুবুর রহমান, প্রফেসর ড. মো. আশরাফুজ্জামান, প্র্রফেসর ড. মো. সাইফুল ইসলাম ফারুকী, প্রফেসর ড. এফএমএ এইচ তাকী, প্রফেসর ড. মো. আমজাদ হোসেন, প্রফেসর ড. মো. হাবীবুর রহমান, প্রফেসর ড. মো. বেলাল হোসেন, প্রফেসর ড. ফজলুল হক, প্রফেসর ড. ফখরুল ইসলাম, প্রফেসর ড. দিল আরা হোসেন, প্রফেসর ড. মো. মামুনুর রশীদ, প্রফেসর ড. মো. ফরিদুল ইসলাম, প্রফেসর ড. মোস্তফা কামাল আকন্দ, প্রফেসর ড. গোলাম সাদিক, প্রফেসর ড. আমিনুল হক, প্রফেসর ড. ইফতিখারুল আলম মাসউদ, প্রফেসর ড. আওরঙ্গজীব আব্দুর রহমান, প্রফেসর ড. মো. শামসুজ্জোহা এছামী, প্রফেসর ড. মো. আব্দুল আলীম, প্রফেসর ড. সৈয়দ সারওয়ার জাহান লিটন, মিসেস লাভলী নাহার, প্রমুখ।

শেয়ার করুন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *