শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ০২:২৮ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
উর্গবাদী সংগঠন দেশে শান্তি বিনষ্টের চেষ্টা করছে: ওবায়দুল কাদের ৮০ হাজার কোটি টাকা খেলাপি শীর্ষ ২৫ ব্যাংকে: বাংলাদেশ ব্যাংক অর্থ পাচারকারীদের আইনের আওতায় আনতে হবে: হাইকোর্ট যুক্তরাষ্ট্র ইরাকে থেকে কূটনীতিকের সংখ্যা কমাল  দেশ চলছে শতভাগ ব্যক্তিতন্ত্রের ওপর: গয়েশ্বর চন্দ্র ‘টেক্সট ফর ইউ’ শিরোনামে হলিউড সিনেমায় প্রিয়াঙ্কা ১১ ডিসেম্বর মুক্তি পাচ্ছে ‘বিশ্বসুন্দরী’  প্রভাস তিন সিনেমায় নিচ্ছেন ৩০০ কোটি! রাজধানীতে ভিপি নূরের নেতৃত্বে মশাল মিছিল বার্সা উড়ছে মেসিকে ছাড়াই  প্রথম জয় বেক্সিমকো ঢাকার  নিরাময়ের বদলে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্রগুলোতে চলে নির্যাতন পৃথিবীর মধ্যে সর্বোচ্চ খরচ বাংলাদেশের প্রতি কি.মি. রাস্তা নির্মাণে সিলেট এমসি কলেজে গণধর্ষণ: ৮ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট বিনামূল্যের পাঠ্যবই আটকা যাচ্ছে তিন সংকটে শনিবার থেকে অ্যান্টিজেন টেস্ট শুরু হচ্ছে করোনা: বিশ্বে মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ১৪ লাখ ৯৯ হাজার জলবায়ু পরিবর্তন ও মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যা মোকাবিলায় কর্ম-পরিকল্পনার আহ্বান সায়মা ওয়াজেদের বিশ্ব এখন করোনার ভ্যাকসিন যুগে  মানসম্মত জীবনের সব আয়োজনে আধুনিক শহর এখন ভাসানচর

সংশ্লিষ্টদের আশঙ্কা চট্টগ্রামে শুরু হয়েছে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি:

 

চট্টগ্রামে স্বাস্থ্যবিধি না মানার কারণে শীত আসতে না আসতেই করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা আবারো বাড়ছে। প্রতিদিন শতাধিক আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে গত একসপ্তাহে। স্বাস্থ্য ও জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, সামাজিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠান বেড়ে যাওয়ায় করোনার দ্বিতীয় ঢেউ ইতোমধ্যে শুরু হয়ে গেছে।

 

শীতের শুরুতেই চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। একমাস আগে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ৪০ থেকে ৫০ জন। কিন্তু গত পাঁচ দিনে করোনা পরীক্ষার ভিড় যেমন বেড়েছে তেমনি আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা শতাধিক ছাড়িয়েছে।

 

গত ১৩ নভেম্বর ১ হাজার ৬২টি নমুনা পরীক্ষায় নতুন করে ১৪৬ জন আক্রান্ত হয়েছে। শীতের প্রকোপ বাড়ায় ও স্বাস্থ্যবিধি না মানার কারণে করোনা আক্রান্ত রেগীর সংখ্যা বাড়ছে বলে মনে করেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ডা. মাহফুজুর রহমান।

 

চট্টগ্রামে প্রথম করোনা শনাক্ত হয়েছিল ১৩ এপ্রিল। বর্তমানে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে সাড়ে ২২ হাজার।

 

সিভিল সার্জন কার্যালয়ের প্রতিবেদনে দেখা যায়, শুক্রবার নগরীর সাতটি ল্যাবে ১ হাজার ৬২ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে নতুন ১৪৬ জনের শরীরে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া যায়। এ নিয়ে টানা ছয় দিন আক্রান্তের সংখ্যা শতক ছাড়িয়ে যায়। সংক্রমণ হার ১৩ দশমিক ৭৫ শতাংশ।

 

নতুনদের মধ্যে শহরের বাসিন্দা ১৩৫ জন এবং আট উপজেলার ১১ জন। উপজেলায় আক্রান্তদের মধ্যে মিরসরাই, লোহাগাড়া ও পটিয়ার ২ জন করে এবং রাঙ্গুনিয়া, হাটহাজারী, সীতাকুণ্ড, চন্দনাইশ ও বোয়ালখালীর ১ জন করে রয়েছেন। ফলে জেলায় মোট সংক্রমিত ব্যক্তির সংখ্যা এখন ২২ হাজার ৪৮২ জন। এর মধ্যে শহরের ১৬ হাজার ৬৫৪ জন ও বিভিন্ন উপজেলার ৫ হাজার ৮২৮ জন।

 

গত তিন মাস ধরে করোনা শনাক্তের হার ছিল ছয় থেকে আট শতাংশ। তবে কয়েকদিনে তা ১৩ শতাংশে উঠে এসেছে।

 

স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ-স্বাচিপের করোনা বিষয়ক সেলের সমন্বয়ক আ. ম. ম মিনহাজুর রহমান বলেন, করোনার দ্বিতীয় ঢেউ ইতোমধ্যে শুরু হয়ে গেছে।

 

সঠিক স্বাস্থ্যবিধি মানার পাশাপাশি মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা না গেলে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ রোধ করা সম্ভব হবে না বলে মনে করেন সিভিল সার্জন ডা. শেখ ফজলে রাব্বি।

 

 

 

মুক্তকন্ঠ২৪

নিয়মিত সকল সংবাদ পেতে মুক্তকন্ঠ২৪.কম এর ফেইসবুকে যুক্ত থাকুন

শেয়ার করুন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *